এই জাদুঘর মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিবে

291
 জালালউদ্দিন সাগর |  মঙ্গলবার, জুলাই ৫, ২০২২ |  ৬:২৪ অপরাহ্ণ
সালেহ মোহাম্মদ তানবীর
       
Advertisement

মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে সবচেয়ে গৌরবোজ্জ্বল বাহিনী বাংলাদেশ পুলিশ। লাল সবুজের পতাকার সাথে বাংলাদেশে পুলিশের অনবদ্য নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে একজন ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল, বেশ কয়েকজন পুলিশ সুপারসহ এক হাজার ২৬২ জন পুলিশ সদস্য শহীদ হয়েছিলেন।

১৯৭১ সালের মার্চ মাস হতেই পূর্ব পাকিস্তানের পুলিশ বাহিনীর ওপর কর্তৃত্ব হারিয়েছিল পাকিস্তানের প্রাদেশিক সরকার। পুলিশের বীর সদস্যরা প্রকাশ্যেই সেদিন পকিস্তানের বিরোধিতা করেছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তুলে বাংলাদেশ পুলিশ।

Advertisement

পিছিয়ে ছিলো না চট্টগ্রামে কর্মরত পুলিশ বাহিনীও। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করতে গিয়ে এসপি এম শামসুল হক, কোতোয়ালী থানার ওসি আব্দুল খালেক, দামপাড়া পুলিশ লাইন্সের আরআই আকরাম হোসেনসহ ৮১ জন পুলিশ সদস্য প্রাণ দিয়েছিলেন।

কিছুটা দেরীতে হলেও মুক্তিযুদ্ধে প্রাণ উৎসর্গ করা সেই বীর শহীদদের স্মরণ করতে এবং নতুন প্রজন্মের কাছ সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) প্রতিষ্ঠা করে ‘পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর’।

দামপাড়াস্থ চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্সে নবনির্মিত জাদুঘরের শুভ উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান।

সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের তত্বাবধানে এবং পরিকল্পনায় ছয় হাজার বর্গফুট আয়তনের এই জাদুঘরে সংগ্রহ করা হয়েছে শহীদ পুলিশ সদস্যদের ব্যবহৃত অস্ত্র, পোশাক ও অন্যান্য জিনিসপত্র।

জাদুঘরের একটি অংশজুড়ে রয়েছে বঙ্গবন্ধু কর্নার। সেখানে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনে চট্টগ্রামের অংশটির পাশাপাশি মহান মুক্তিযুদ্ধের সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন স্মারক ও ডকুমেন্ট স্থান পেয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর চট্টগ্রামের ঐতিহ্যময় ইতিহাস এবং চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে আধুনিক শিল্প ও স্থাপত্যের মিশেলে নির্মিত জাদুঘরে বিপ্লবী দেশপ্রেমের স্মারক থরে থরে সাজিয়ে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মকে পৌঁছে দিতে সিএমপির এই উদ্যোগ বলে জানান কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর।

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম হলো বিপ্লবীদের সুতিকাগার। এখানেই জন্ম প্রীতিলতা এবং মাস্টার দা সূর্য সেনের। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর শহীদদের স্মরণ করার সাথে সাথে বিপ্লবী সে সব সৈনিকদেরকের প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে আমাদের এই চেষ্টা। এই জাদুঘর প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস পৌঁছে  । যোগ করেন কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর।

তিনি জানান, জাদুঘরে সংরক্ষিত রয়েছে বিভিন্ন সময়ের পুলিশের পোশাক, তৎকালীন সময়ের সরকারি দপ্তরের চিঠি, পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ, বীরশ্রেষ্ঠদের বৃত্তান্ত, বর্তমান পুলিশ সদস্যদের পোশাক, দামপাড়া পুলিশ লাইন্সের ম্যাপ, ফাঁসির মঞ্চ, ভিজুয়াল ডিসপ্লে সংবলিত কক্ষ, মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পুলিশ সদস্যদের ছবি, তথ্য, ইতিহাস, মুক্তিযুদ্ধ কেন্দ্রিক দেশি বিদেশি বিভিন্ন পত্রিকার নিউজ, বঙ্গবন্ধু কর্নার, মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক বিভিন্ন বই, বঙ্গবন্ধুর ছবি ও তাঁর লেখা বই, মুক্তিযুদ্ধে ব্যবহৃত অস্ত্রসহ আরও অনেক কিছু।

আরও পড়ুনঃ নবীন ওসির জয়জয়কার সিএমপিতে, ১৬ থানার ১৩ টিতেই নবীন

আরও পড়ুনঃ ‘আমার গাড়ি নিরাপদ’ অ্যাপস কমিয়েছে শঙ্কা, দিয়েছে স্বস্তি!

১৯৩০ সালের ১৮ এপ্রিল মাস্টার দা সূর্য সেনের নেতৃত্বে স্বাধীনতাকামী বিপ্লবীদের ব্রিটিশ পুলিশের চট্টগ্রামে অবস্থিত অস্ত্রগার লুণ্ঠন, টেলিফোন ও টেলিগ্রাফ, অফিসের ধ্বংস সাধন ও ইউরোপিয়ান ক্লাবে হামলা চালানোর মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জনের প্রয়াস এবং ১৯৭১ সালের মার্চে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করতে গিয়ে চট্টগ্রামে শহীদ পুলিশ সদস্যদের মুক্তিযুদ্ধের জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করা হয়।

ঐতিহাসিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনাবলীকে দৃষ্টিলব্দ অবয়ব প্রদানের লক্ষে মৌলিক ব্রিটিশ স্থাপত্য শৈলীতে প্রতিষ্ঠিত লাল ভবনদ্বয়ের অখন্ডতা বজায় রেখে আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, শিল্প ও স্থাপত্যের ক্রিয়ামূলকতা ও মিনিমালিজম আরোপনের মাধ্যমে এই জাদুঘর নির্মাণ করা হয়।

পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর সম্পর্কে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি, সমাজ বিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন বলেন, মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের অবদান সেদিন পুরো জাতিকে মুগ্ধ করেছে। নতুন প্রজন্মের কাছে এই ইতিহাস সঠিকভাবে তুলে ধরার জন্য সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানবীর যে উদ্যোগ নিয়েছে তা প্রসংশনীয়। পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর সিএমপির আরও একটি অনন্য উদ্যোগ; যোগ করেন ড.অনুপম সেন।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সাবেক মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিকভাবে তুলে ধরতে না পারলে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস হুমকির মুখে পড়বে। ইতিহাস রক্ষায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ যে উদ্যোগ নিয়েছে তা আসলেই অসাধারণ।

এসসি

Advertisement

CTG NEWS