আট স্কুলে বাংলাদেশ স্কাউটের হাইজিন সুরক্ষা-সামগ্রী বিতরণ

112
 নিজস্ব প্রতিবেদক |  মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৯, ২০২১ |  ৬:৪৭ অপরাহ্ণ
চট্টগ্রামে বিভিন্ন স্কুলে সুরক্ষা-সামগ্রী বিতরণ করলো বাংলাদেশ স্কাউট
       
Advertisement

ডেটল-হারপিক, বাংলাদেশ স্কাউটস-এর মাধ্যমে চট্টগ্রামের ৮টি স্কুলে “সুরক্ষিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান” ক্যাম্পেইনের আদলে হাইজিন সুরক্ষা-সামগ্রী বিতরণ করেছে।

আজ ১৯ অক্টোবর, মঙ্গলবার চট্টগ্রামে লালখান বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ‘সুরক্ষিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান’ শীর্ষক এক হাইজিন পণ্য হস্তান্তর অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বাংংলাদেশ স্কাউটস চট্টগ্রাম অঞ্চল-এর আঞ্চলিক কমিশনার এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা, চট্টগ্রাম অঞ্চল-এর আঞ্চলিক উপ পরিচালক দেবব্রত দাশ এর সভাপতিত্বে সুরক্ষা-সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান স্কাউট ব্যক্তিত্ব বাংলাদেশ স্কাউটস-এর জাতীয় কমিশনার (সমাজ উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য) কাজী নাজমুল হক। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রাথমিক শিক্ষা, চট্টগ্রাম বিভাগ-এর উপ-পরিচালক এবং বাংলাদেশ স্কাউটস চট্টগ্রাম অঞ্চল-এর সহ সভাপতি ড. মো. শফিকুল ইসলাম; বাংলাদেশ স্কাউটস-এর জাতীয় উপ কমিশনার (সমাজ উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য) মোহাম্মদ শাহীন এল টি এবং রেকিট বাংলাদেশ-এর মার্কেটিং ম্যানেজার ফারনাজ করিম।

Advertisement

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি রেকিট বাংলাদেশ-এর মার্কেটিং ম্যানেজার ফারনাজ করিম বলেন, “সমাজে ব্যাক্তিগত ও পরিবেশ পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিতে ডেটল হারপিক অনেকদিন ধরেই কাজ করে আসছে। যেহেতু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি পুনরায় চালু হয়েছে, তাই শিক্ষার্থীদের জন্য সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যসুরক্ষা নিশ্চিত করা আমাদের অবশ্য কর্তব্য। শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার জন্য একটি সুরক্ষিত পরিবেশ তৈরিতে আমরা কাজ করছি। আমরা মনে করি, হাইজিন সুরক্ষা-সামগ্রীগুলোর সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে স্কুল কর্তৃপক্ষ আরও সহজভাবে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের জন্য সুরক্ষিত পরিবেশ তৈরি করতে পারবে।”

তিনি আরও বলেন, “ডেটল হারপিক-এর লক্ষ্যকে এগিয়ে নিয়ে যেতে বাংলাদেশ স্কাউটস-কে পাশে পেয়ে আমরা গর্বিত। আমি আশাবাদী, আমাদের এই যৌথ প্রচেষ্টা দেশব্যাপী একটি ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি করবে।”

প্রধান স্কাউট ব্যক্তিত্ব জাতীয় কমিশনার (সমাজ উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য) কাজী নাজমুল হক তার বক্তব্যে বলেন, “সমাজ উন্নয়নে বাংলাদেশ স্কাউটস সবসময় কাজ করে আসছে। তবে এই মুহূর্তে সমাজ উন্নয়নের যে সুযোগ আমাদের হাতে এসেছে তা অন্য সময় থেকে ব্যতিক্রম। সমাজের জন্য গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগে রেকিট বাংলাদেশ-কে আমরা দীর্ঘদিন ধরে পাশে পেয়ে আসছি। আমরা আশাবাদী ভবিষ্যতেও আমরা রেকিট-এর সহযোগিতায় আরও অনেক উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করবো।

বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সারা দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রায় দেড় বছর বন্ধ ছিল। এ সময় শিক্ষার্থীদের সবরকম পাঠদান শ্রেণি কক্ষের বদলে অনলাইনে সম্পন্ন হতো। তবে বর্তমান আক্রান্তের সংখ্যা তুলনামূলক কম হওয়ার কারণে বাংলাদেশ সরকার সম্প্রতি সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু করেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোমলমতি ছাত্র ছাত্রীদের সুরক্ষিত রাখতে ‘সুরক্ষিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান’ শীর্ষক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে ডেটল-হারপিক।

এসসি

Advertisement

CTG NEWS