মিরসরাইয়ে হত্যাকাণ্ডের পর এবার পাঁচলাইশে নির্মম হত্যাযজ্ঞ

433
 নিজস্ব প্রতিবেদক: |  শুক্রবার, অক্টোবর ১৫, ২০২১ |  ১০:০১ পূর্বাহ্ণ
       
Advertisement

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে নির্মম হত্যাকাণ্ডের রেশ শেষ হতেই নগরের পাঁচলাইশে মোহাম্মদপুর এলাকার একটি বাড়ি থেকে এক নারী ও দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আজ ১৫ অক্টোবর, শুক্রবার ভোর ৫টায়  এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

Advertisement

নিহতরা হলেন. সুমিতা খাতুন, তার ৭ বছরের মেয়ে জান্নাত মুন ও আড়াই বছরের ছেলে শান।

মোহাম্মদপুর এলাকার একটি ভবনের চতুর্থ তলার ফ্ল্যাট থেকে মরদেহগুলো উদ্ধার করেছে পুলিশ। সুুমিতার স্বামী সোহেল রানা এলাকার ইনানি হারবাল নামে প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন।

বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন পাঁচলাইশ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, প্রথমে দুই সন্তানকে হত্যা করা হয়। এরপর মা নিজেই আত্মহত্যা করেছেন।

পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহেদুল কবির জানান, মুরাদপুরের মোহাম্মদপুর এলাকার একটি বাড়ি থেকে ভোর ৫ টায় খবর আসে ফ্ল্যাটের দরজা সারা রাত ভেতর থেকে বন্ধ। সোহেল রানা নামে এক লোক ঘরে ঢুকতে পারেননি রাতভর। তার সন্দেহ হওয়ায় পুলিশকে দেয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দরজা ভেঙে ঘুরে ঢুকে মরদেহগুলো দেখতে পায়। এর মধ্যে সুমিতা ও শিশু শানের মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। পাশেই বিছানায় পড়ে থাকতে দেখা যায় শিশু জান্নাতের নিথর দেহ।

এদিকে সুুমিতার স্বামী সোহেল জানান, অফিসের কাজ শেষ করে বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে বাসায় ফিরে দেখেন ভেতর থেকে দরজা বন্ধ। অনেক ডাকাডাকি করে সাড়া না পেয়ে আমি আত্মীয়-প্রতিবেশীদের খবর দিই। সারা রাত ধরে সবাই চেষ্টা করেও ভেতর থেকে কোনো সাড়া পাননি। এরপর পুলিশে খবর দিয়ে থাকি।

সোহেল রানার বোনের স্বামী নজরুল ইসলাম খবর পেয়ে মধ্যরাত থেকেই সেখানে ছিলেন। তিনি জানান, কীভাবে এই ঘটনা ঘটল, কেনই বা ঘটল কিছুই বোঝা যাচ্ছে না।

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোহেল রানাকে হেফাজতে রাখা হয়েছে বলে জানান ওসি জাহেদুল।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) সকালে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জের সোনাপাহাড় এলাকার একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় এক বৃদ্ধ দম্পতি ও তাদের ছেলের রক্তাক্ত মরদেহ।

এমকে/এসসি

Advertisement

CTG NEWS