সন্তানকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ বাবার বিরুদ্ধে 

270
 নিজস্ব প্রতিবেদক:  |  সোমবার, অক্টোবর ১১, ২০২১ |  ৪:৩৬ অপরাহ্ণ
আদালত
       
Advertisement

স্ত্রীকে ঘরে তালাবন্দী করে রেখে নিজের দুই মাসের সন্তানকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করতে চেয়েছিলেন বাবা-এমন অভিযোগ এনে সে পাষণ্ড বাবার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন স্ত্রী নুরজাহান আক্তার কলি। এর আগেও সন্তানকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যাচেষ্টার পাশাপাশি স্ত্রীর শরীরে গরম ভাতের মাড় ফেলে হত্যা চেষ্টার অভিযোগও রয়েছে স্বামীর বিরুদ্ধে।

আজ ১১ অক্টোবর, সোমবার দুপুরে চট্টগ্রামের মেট্টোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট শফি উদ্দিনের আদালতে স্বামী আরাফাতুল ইসলাম মোর্শেদের নামে এই মামলা দায়ের করেন নুরজাহান আক্তার কলি (২০) নামে এতিম এই নারী।

Advertisement

আদালত মামলাটি আমলে নিয়েছেন এবং খুলশী থানাকে দ্রুততম সময়ে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী এডভোকেট গোলাম মাওলা মুরাদ বলেন, যৌতুকের জন্য স্ত্রীর ওপর অনেক ধরনের নির্যাতন হয়। কিন্তু ২ মাসের শিশু সন্তানকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করার চেষ্টা খুবই ঘৃন্বিত অপরাধ।

তিনি বলেন, পাষণ্ড এই স্বামী দীর্ঘদিন বেকার থাকায় স্ত্রীর উপর যৌতুকের দাবিতে মারধর করতো। আর তাতে সায় দিয়ে স্ত্রীর উপর নির্যাতনে সহায়তা করতো শশুর বাড়ির লোকজন। আদালত মামলাটি আমলে নেয়ায় আশা করছি নির্যাতিতা মহিলা ন্যায় বিচার পাবেন।

মামলায় নির্যাতিতা ওই মহিলার শশুর, শাশুড়ি, দেবর এবং এক খালা শাশুড়িকেও আসামী করা হয়েছে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, এতিম এই নারী নুরজাহান আক্তার কলিকে আশপাশের লোকজন ধারদেনা করে টাকা জোগাড় করে বিয়ে দেন আরাফাতুল ইসলাম মোর্শেদ নামে লালখানবাজারের মতিঝর্ণা এলাকার এক ছেলের সাথে। বিয়ের পর থেকেই কলি কে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন করতে থাকে স্বামীসহ শশুরবাড়ির লোকজন। গর্ভে সন্তান আসলে স্বামী একদিন যৌতুকের দাবিতে সন্তান নষ্ট করে ফেলার উদ্যোগ নেন। স্ত্রী রাজি না হওয়ায় তার উপর নির্যাতন নেমে আসে। ৯৯৯ এ ফোন করে সে যাত্রায় বেঁচে যান ওই নারীসহ তাদের গর্ভের সন্তান। সামাজিকভাবে বিচারে স্ত্রীর উপর আর নির্যাতন হবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিলে বেকার স্বামী মোর্শেদ প্রায়ই স্ত্রীকে মারধর করতো। পিতা-মাতা না থাকায় সন্তান আর নিজের ভবিষ্যতের কথা ভেবে কখনো উচ্চবাচ্য করতো না স্ত্রী কলি।

অবশেষে বিগত ১০ জুলাই গর্ভের সন্তান ইয়াসিন পৃথিবীর আলো দেখলে কলির উপর নির্যাতনের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। বাড়িভাড়ার টাকাসহ যৌতুক দিতে না পারলে মেরে ফেলার হুমকির মধ্যেই চলতে থাকে কলির যন্ত্রণার জীবন। একদিন কলিকে মারধর করে শিশু সন্তানসহ ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয় শাশুড়িসহ স্বামী মোর্শেদ। শুধু তাই নয়, গরম ভাতের মাড় ঢেলে দেয় মাটিতে পড়ে থাকা কলির গায়ে এবং পায়ে।

সন্তানের বয়স যখন দুই মাস ছুঁইছুঁই করছে এমন এক সময়ে গত ৫ অক্টোবর স্বামী এবং শশুর বাড়ির লোকজন আবারো মারধর করে কলিকে। এবার স্ত্রী কলিকে যৌতুকের জন্য শুধু মারধর নয়, কথাকাটাকাটির জের ধরে ঘরের ভিতর তালাবদ্ধ করে রেখে প্রায় ২ মাস বয়সি শিশুটিকে বালিশ চাপা দিয়ে মেরে ফেলার চেষ্টা করে স্বামী মোর্শেদ। কলির চিৎকারে আশপাশের লোকজনসহ কলির দূর সম্পর্কের আত্মীয় স্বজন এসে ৯৯৯ এ ফোন করলে পালিয়ে যায় স্বামী মোর্শেদ। আহত কলিকে সেখান থেকে কোনো রকমে রক্ষা করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাটি মর্তিঝর্ণা এলাকাতে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে।

জেইউএস/এসসি

Advertisement

CTG NEWS