‘শরীয়াহ ব্যবসার নামে ৫৮ বিনিয়োগকারীর সাথে তানজীরের প্রতারণা’

1144
 নিজস্ব প্রতিবেদক |  বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২১ |  ৫:৩১ অপরাহ্ণ
       

হালিশহরে ইসলামী শরীয়াহ ভিত্তিক ব্যবসার নাম দিয়ে সুন্নাহ মার্ট প্রতিষ্ঠা করে ৫৮ বিনিয়োগকারীর সাথে প্রতারণা করেছেন মো. তানজীর আবেদীন নামের এক ব্যক্তি। বিনিয়োগকারীদের অভিযোগ-প্রতি মাসের হিসাবসহ তিন মাস অন্তর লাভ-লোকসানের তথ্য দেওয়ার কথা থাকলেও প্রতিষ্ঠার দুই বছরের মধ্যে কোনো হিসাব দেননি অভিযুক্ত তানজীর। শুধু তা নয় অডিটে উঠে আসে ৮২ লাখ টাকার গড়মিল।

আজ ৯ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের এস রহমান হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।

Advertisement

সংবাদ সম্মেলনে বিনিয়োগকারীরা অভিযোগ করে বলেন, অভিযুক্ত তানজীরের কাছে ব্যবসার লাভ-লোকসান হিসাব প্রকাশের দাবি জানালে পুলিশ পরিচয়ে তাদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন।

এসময় লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন, ২০১৯ সালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে দুই ধাপে ৫৮ জন বিনিয়োগকারীর কাছ থেকে ৫৯ লাখ টাকা নিয়ে শরীয়াত ভিত্তিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সুন্নাহ মার্ট প্রতিষ্ঠা করে ব্যবসা আরম্ভ করেন। চুক্তি মোতাবেক মো. তানজীর ব্যবসা পরিচালনা ও অর্থ ব্যস্থাপনার দায়িত্ব নেন। কিন্ত চুক্তিতে বিনিয়োগকারীদের নিকট প্রতি মাসে ব্যবসায়িক হিসাব ও তিন মাস অন্তর লাভ লোকসান হিসাব প্রকাশের নিয়ম থাকলেও দীর্ঘ দুই বছরেও কোন ধরনের হিসাব দেননি তিনি।

লিখিত বক্তব্যে আরো দাবি করা হয়, হিসাবের গরমিল পরিলক্ষিত হলে ব্যবসার সকল বিনিয়োগকারীরা প্রাথমিকভাবে একটি হিসাব করেন। ওই হিসাবেও আয়ের সাথে লোকসানের ব্যাপক ফারাক দেখা যায়। তারপরও সে হিসাব তানজীর মানেনা বলে জানায়। পরে আরো বিনিয়োগকারীদের চাপে খান ওয়াহাব শফিক রেহমান এন্ড কোং নামের অডিট ফার্ম দিয়ে ব্যবসার হিসাব নিরীক্ষণ করা হয়। হিসাব নিরীক্ষণে সুন্নাহ মার্টের হিসাবে ৮১ লাখ ৮২ হাজার ৯৪২ টাকা হিসাবের গড়মিল পাওয়া যায়।

তারা দাবি করেন, অডিটের পর হিসাবের এসব গড়মিলের ব্যাখা চাওয়া হয় পরিচালক মো তানজীর আবেদীনের কাছে। কিন্তু অভিযুক্ত তানজীর নিরীক্ষণ প্রতিবেদন অস্বীকার করেন। তাই প্রতারক তানজীরের বিরুদ্ধে আদালতে বিনিয়োগকারীরা একটি প্রতরণার মামলা করেন। যা সিআইডি তদন্ত করছে। কিন্ত প্রতারক তানজীর বিনিয়োগকারীদের পুলিশ পরিচয়ে ও প্রশাসনের লোক দিয়ে ফোন করে হয়রানিসহ বিভিন্ন মাধ্যম দিয়ে ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। এ অবস্থায় বিনিয়োগকারীরা নিজে ও পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

এছাড়াও বক্তারা উল্লেখ করেন, গত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদের জন্য আবেদন করেন অভিযুক্ত মো. তানজীর আবেদীন। প্রার্থীতা যাচাই প্রক্রিয়ায় ভুয়া ও জালিয়াত তথ্য প্রদানের অভিযোগে তার প্রার্থীতা বাতিল করে নির্বাচন কমিশন।

সংবাদ সম্মেলনে সুন্নাহ মার্ট সুপার শপের অংশীদারদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মো: শরীফ, আমির খসরু, মো: মাজেদ, মো: লোকমান উদ্দির মামুন, মো: সাজেদ ও তায়েবা মমতাজ প্রমুখ।

এসআর/এফএম/ এসএম

Advertisement

CTG NEWS