ঝুঁকিতে হালদা নদীর আজিম চৌধুরী ঘাট সেতু; ধসের শঙ্কা

169
 নিজস্ব প্রতিবেদক |  শুক্রবার, আগস্ট ২০, ২০২১ |  ৫:০৮ অপরাহ্ণ
       

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির বারৈয়ার ঢালা সড়কের আজিম চৌধুরী ঘাটে হালদা নদীর উপর নির্মিত সেতুটি অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। যে কোন সময়ে এটি ধসে যাবার আশংকা দেখা দিয়েছে বলে মনে করেন স্থানীয়রা। বর্তমানে সেতুটির উপর কোন ভারী যানবাহন উঠলে এটি থরথর করে কেঁপে উঠে।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, গত বছর থেকে সরকারিভাবে হালদা নদীর বালু মহলের ইজারা বন্ধ হওয়ার আগে সেতুটির উভয় পাশ থেকে অব্যাহতভাবে বালু তোলা এবং হালদার নদীভাঙনের কারণে সেতুটির পিলারের নীচের মাটি সরে যাওয়ায় খুবই ঝুকিপুর্ণ হয়ে উঠেছে সেতুটি । বর্তমানে ইজারা বন্ধ থাকলেও নৌকায় করে রাতে সেতুর ভাটি থেকে তোলা হচ্ছে অবৈধভাবে বালু।

Advertisement

এ ব্যাপারে হারুয়ালছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো.ইকবাল হোসেন চৌধুরী জানান, সেতু রক্ষার জন্য যে কোন মূল্যে বালি উত্তোলন বন্ধ করতে হবে । এ বিষয়টি উপজেলা সমন্বয় সভায় একটি প্রস্তাব পাশ করা হয়েছে। বর্তমানে সরকারীভাবে হালদা নদীর ইজারা বন্ধ রয়েছে। কিন্তু বালু চোরের দল রাতের আধারে নৌকায় করে বালু তোলার ফলে সেতুটি দিন দিন ঝুকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

তিনি জানান, সেতুটি বিগত ১৯৯৮ সালে ২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মান করা হয়। অথচ বর্তমান সময়ে এরকম একটি সেতুটি নির্মান করতে গেলে ১০ কোটি টাকারও বেশী ব্যয় হবে। তিনি বলেন বিগত সময়ে সেতুর নীচে থেকে এভাবে বালু তোলার কারনে সেতুটি ধসে পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। যদি সেতুটি ধসে পড়ে তাহলে সুয়াবিল, হারুয়ালছড়ি, ভুজপুর, সীতাকুন্ড সহ উক্ত এলাকার হাজার হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়বে। সেতুটি রক্ষায় দ্রুত পদক্ষেপ নেবার জন্য এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট কতৃর্পক্ষের প্রতি দাবী জানিয়েছেন।

সওজের চট্টগ্রামের উপসহকারী প্রকৌশলী এস.এম শাহরিয়ার কামাল জানান, হালদা নদীর উপর সেতুটি এলজিইডি পক্ষ থেকে নিমার্ণ করা হয়। আমরা আগামীকাল সেতুটি পরিদর্শনে যাব। বর্তমানে হালদা নদীর ভাঙ্গনের কারণে সেতুর পিলারের নীচের মাটি সরে যাওয়ায় যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে তার জন্য দ্রুত প্রদক্ষেপ নিতে হবে বলেও জানান তিনি।

এমকে

Advertisement

CTG NEWS