মেয়েকে যারা বিপথগামী করেছে তাদেরও গ্রেফতার চাইলেন পিয়াসার মা

1144
 জালালউদ্দিন সাগর |  বুধবার, আগস্ট ১১, ২০২১ |  ৬:৫৬ অপরাহ্ণ
পিয়াসা
       
Advertisement

মেয়ের বিষয়ে এবার মুখ খুললেন সম্প্রতি মাদক ও ব্ল্যাকমেইলিংসহ বিভিন্ন অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসার মা নবুয়াত আরা সিদ্দিকি রকি। তার দাবি মেয়ের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার শাস্তির হোক। এর পাশাপাশি যারা পিয়াসাকে বিপদগামী করেছে তাদেরকে যদি গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করা না হয় তাহলে এভাবে আরও হাজারো পিয়াসার জন্ম হবে।

গতকাল ১০ আগস্ট মঙ্গলবার দুপুরে মুঠোফোনে সিটিজি নিউজের এই প্রতিবেদকের সাথে নিজের অভিব্যক্তি এভাবেই প্রকাশ করেন তিনি।।

Advertisement

নবুয়াত আরা সিদ্দিকি রকি বলেন, আমার মেয়ে খাস্তগীর স্কুলের মেধাবী ছাত্রী ছিলো। ক্লাসে সব সময় মেধাক্রমে এক থেকে পাঁচের মধ্যে থাকতো সে। এছাড়া গান ও নাচে পারদর্শী পিয়াসা ছিলো শিশু সংগঠন খেলাঘরের সক্রিয় সদস্য। জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত মেয়েটি হঠাৎ করেই তো আর নষ্ট হয়নি। এই অধঃপতনের পেছনে কারা আমার মেয়ের ছায়াসঙ্গী ছিলো তাদের খুঁজে বের করতে হবে। নষ্টপথে যাওয়ার জন্য আমার মেয়ের যদি শাস্তি হয় তাহলে তাকে যারা খারাপ পথে এনেছে—তাদের শাস্তি হবে না কেন? এই প্রতিবেদককে উল্টো প্রশ্ন করেন এই মা।

তিনি আরও বলেন, হাম-নাতে পারদশীর্ পিয়াসা স্কুলে যাওয়ার সময় মাথায় কাপড় ছাড়া কখনো ঘর থেকে বের হতো না । সে পিয়াসা উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকায় এসে আমূল বদলে গেলো। এই বদলানোর পিছনের কারিগর কারা? কাদের সহযোগিতায় পিয়াসার নৈতিক অবক্ষয় হয়েছে তাদেরকে বিচারের আওতায় আনার আবেদন জানিয়েছেন এই মা।

কাদের কারণে পিয়াসার আজ এ অবস্থা বা কিভাবে জড়ালো অপরাধ জগতে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রামে থাকতে রুবায়েত খানসহ আরও কয়েকজনের সাথে পিয়াসার বন্ধুত্ব ছিলো। ঢাকায় আসার পরও নিয়মিত যোগাযোগ ছিলো তাদের সাথে। মাঝেমাঝে পিয়াসার বাসায়ও আসতো তারা। জন্মদিন বা অন্যকোনো পার্টি থাকলে বিমানে করে পিয়াসাকে তারা চট্টগ্রাম নিয়ে যেতো। এছাড়া ঢাকার মিডিয়া জগতের  সাথে পেশাগত কারণে সম্পর্ক ছিলো পিয়াসার।

তাদের কারণেই পিয়াসার অন্ধকার জগতে ঢুকেছে কিনা এমন প্রশ্নে তিনি আরও বলেন, ঠিক বলতে পারবো না। কি কারণে পিয়াসা গ্রেফতার হয়েছে এবং কারা ছিলো এর নেপথ্যে—এ বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিত না।

গ্রেফতার হওয়ার পর পিয়াসার সাথে দেখা বা কথা হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে পিয়াসার সাথে কথা না বলা পর্যন্ত আমরা কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারছিনা। পিয়াসার সাথে কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে না জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আমি আমার মেয়ের সাথে দেখা করে কথা বলতে চাই।

পিয়াসার মা মেয়ে সম্পর্কে বলেন, যদি আমার মেয়ের যোগ্যতা না থাকতো তাহলে একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে পরিচালক কিভাবে হলো বা কোন স্বার্থে তাকে এ পদ দেওয়া হয়েছিলো। কাদের স্বার্থে? এই বিষয়টি তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।

মুঠোফোনে কাঁদতে কাঁদতে তিনি বলেন, শুধু পিয়াসার শাস্তি হলেই হবে না। যাদের কারণে পিয়াসার আজকে এই অবস্থা তাদের শাস্তি হওয়া উচিৎ। নেপথ্যে থাকা সেই কারিগরদের কারণেই আমার মেয়ের এই পরিণতি।

যারা পিয়াসাকে বিপদগামী করেছে তাদেরকে যদি গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করা না হয় তাহলেএভাবে আরও হাজারো পিয়াসার জন্ম হবে।

গত ১ আগস্ট রোববার রাত ১০টার দিকে প্রথমে রাজধানীর বারিধারায় মডেল পিয়াসার বাসায় অভিযান শুরু করে পুলিশ। পরে রাত পৌনে ১২টার দিকে তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়। এরপর শ্যামলী থেকে গ্রেফতার করা হয় মডেল মরিয়ম আক্তার মৌকে।

সে সময় পুলিশ জানিয়েছিল, মডেল পিয়াসা ও মৌ সংঘবদ্ধ একটি চক্রের সদস্য। তারা পার্টির নামে উচ্চবিত্তদের বাসায় ডেকে এনে মদ ও ইয়াবা সেবন করিয়ে আপত্তিকর ছবি তুলে রাখতেন। পরে সেই ছবি দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিতেন।

এসএম

Advertisement

CTG NEWS