চট্টগ্রাম টু কুমিল্লা: স্কুল ছাত্রী অপহরণ, মূল হোতা ধরা

143
 নিজস্ব প্রতিবেদক: |  মঙ্গলবার, জুলাই ২৭, ২০২১ |  ৯:৩৬ অপরাহ্ণ
       

নগরীর লালখানবাজার শহীদনগর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী । সে প্রাইভেট পড়ার জন্য শিক্ষক জনৈক রাসেলের বাসায় আসা করত। প্রাইভেটে যাওয়ার সময় প্রায়দিন রাস্তায় ভিকটিমকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে বিরক্ত করত আল আমিন। ভিকটিম তার প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করলে আল আমিন ক্ষিপ্ত হয়। কিন্তু কোনো কিছুতেই বশে আনতে পারেনি মেয়েটিকে। শেষ পর্যন্ত ওই মেয়েকে লালখান বাজার থেকে কুমিল্লার মুরাদনগর থানা এলাকায় তুলে নিয়ে যায় সে।

তবে বেশি দিন গা ঢাকা দিয়ে থাকতে পারেনি, দুদিন পরই কুমিল্লা থেকে তাকে ধরে এনেছে পুলিশ। উদ্ধার করেছে অপহরণের শিকার ওই কিশোরীকে।

Advertisement

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে কুমিল্লার মুরাদনগর থানার কাজীয়াতল এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তারের পর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার আল-আমিন ওই এলাকার ৮ নম্বর কাজীয়াতল এলাকার মৃত আবুল খায়ের ছেলে। ভাড়া বাসায় থাকতেন লালখান বাজার পোড়া কলোনিতে।

এ বিষয়টি নিশ্চিত করে খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহিনুজ্জামান বলেন, ২৫ জুলাই প্রাইভেট থেকে বাসায় ফেরার সময় লালখান বাজার পোড়া কলোনি এলাকা থেকে ওই স্কুলী ছাত্রী অপহরণের শিকার হয়। তার পিতা থানায় অভিযোগ করলে আমাদের ফোর্স কুমিল্লা মুরাদনগর থেকে তাকে উদ্ধার করে। এসময় অপহরণে জড়িত অভিযোগে আল আমিন নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি আরও জানান, ভিকটিমকে আল আমিন প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিল। ভিকটিম তা প্রত্যাখান করলে পরিকল্পিতভাবে আল আমিন তাকে অপহরণ করে। তার আরও দুই সহযোগী এই অপহরণকাণ্ডে সম্পৃক্ত। আমরা তাদেরও আটকের চেষ্টা করছি।

পুলিশ জানিয়েছে, অপহরণের শিকার কিশোরী এবং অপহরণকারী দুজনেই খুলশী থানার লালখানবাজার এলাকার বাসিন্দা। অপহৃত কিশোরী লালখানবাজার শহীদনগর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী। স্কুল বন্ধ থাকায় প্রতিদিন ওই ছাত্রী পোড়া কলোনি এলাকার এক শিক্ষকের কাছে ‘প্রাইভেট’ পড়তে যায়। পথে তাকে প্রতিদিনই প্রেমের প্রস্তাব দিতেন আল আমিন। কিন্তু প্রতিবারই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে ওই ছাত্রী।

বারবার প্রত্যাখ্যাত হতে হতে শেষ পর্যন্ত রোববার (২৫ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে কিশোরীকে অপহরণ করে একটি ট্যাক্সিযোগে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যান ওই তরুণ। প্রাইভেট শেষে তখন বাসায় ফিরছিল ছাত্রীটি।

কিশোরীর বাবা বাদি হয়ে চট্টগ্রামের খুলশী থানায় এ ঘটনায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ কুমিল্লা জেলায় আল আমিনের অবস্থান শনাক্ত করে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায়। এরপর মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) ভোরে কুমিল্লার মুরাদনগর থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে আল আমিনকে গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি অপহৃত কিশোরীকেও উদ্ধার করা হয়।

এমকে

 

Advertisement

CTG NEWS