পদ থাকলেও পদায়ন নেই সিএমপিতে!

347
 জালালউদ্দিন সাগর |  বুধবার, জুলাই ১৪, ২০২১ |  ৬:২৯ অপরাহ্ণ
সিএমপি
       

প্রয়োজনীয় লোকবলের অভাব তো আছেই, তারমধ্যে মঞ্জুরীকৃত সংখ্যার চেয়ে ৭০৪ জন কম লোকবল নিয়েই অপরাধ রোধ ও বিভিন্ন চাঞ্চল্যকর মামলার রহস্য উদঘাটনে ইতোমধ্যে ইর্ষণীয় সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ(সিএমপি)। তবে ৬০ লক্ষ লোকের এ নগরীতে পর্যাপ্ত কর্মীবাহিনী না থাকায় প্রতিনিয়ত চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হচ্ছে সিএমপিকে। যদি লোকবল সংকট সমাধান হয় তাহলে ধারাবাহিক সফলতার পাশাপাশি নাগরিক সেবা আরও বাড়াতে সক্ষম হবে পুলিশের এই শাখা এমনটাই বলছেন সিএমপির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার ক্লু উদ্ঘাটন করে আসামী গ্রেফতার, মাদক ব্যবসার আড়ালে থাকা গডফাদার থেকে শুরু করে গলির ছিনতাইকারীকে আইনের আওতায় আনা, পারিবারিক কলহ রোধ, মাদক নির্মূলসহ অপরাধ প্রবণতা রোধে সিএমপি সফল হলেও লোকবলের অভাবে প্রতিনিয়তই হিমশিম খেতে হচ্ছে নগর পুলিশকে।

Advertisement

তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুলিশের এক ইউনিট থেকে অন্য ইউনিট বা এক জেলা থেকে অন্য জেলায় জরুরি প্রয়োজনে পুলিশ সদস্য সংযুক্ত করার নিয়ম রয়েছে বাংলাদেশ পুলিশে। আর সিএমপিও অনেক ক্ষেত্রে এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে জরুরি প্রয়োজন পূরণের চেষ্টা করে। মঞ্জুরীকৃত পদের বিপরীতে ৭০৪ জন কম লোকবল নিয়ে নগরীর প্রায় ৬০ লক্ষ মানুষের ঘনবসতিপূর্ণ চট্টগ্রাম নগরীর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাসহ নগরবাসীকে যানজটহীন একটি নগরী উপহার দিতে রাতদিন নিরলস কাজ করে যাচ্ছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)।

প্রায় ৬০লক্ষ মানুষের চট্টগ্রাম নগরীকে অপরাধমুক্ত রাখতে পুলিশ কমিশনারের নেতৃত্বে আট জোনে ভাগ হয়ে দায়িত্বপালন করছে সিএমপি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ পুলিশের এই ইউনিটে মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ৬ হাজার ৭শ ৭০টি হলেও এর বিপরীতে সিএমপিতে লোকবলের সংখ্যা ৬ হাজার ৬৬ জন। মন্ত্রণালয়ের মঞ্জুরীকৃত পদের চেয়ে প্রায় ৭০৪জন কম লোকবল নিয়ে কাজ করছে সিএমপি।

প্রাপ্ত তথ্যমতে জানা যায়, সদরদপ্তর কেন্দ্রিক সিএমপিতে মঞ্জুরীকৃত পদ ৭৫টি। এর মধ্যে কমিশনার ১টি, অতিরিক্ত কমিশনার ৩টি, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) পদ ১৮টি, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) ২৩টি, সহকারী কমিশনার (এসি)৩০টি। এর মধ্যে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ২৩ পদের বিপরীতে ঘাটতি রয়েছে ৩টি পদে এবং সহকারি পুলিশ কমিশনার পদে ঘাটতি রয়েছে ৬টি পদে। এছাড়া পরিদর্শক পদে মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যার বিপরীতে ৬৩জন পরিদর্শকই কর্মরত আছেন সিএমপিতে।
এসআই (উপ—পরিদর্শক) নিরস্ত্র পুরুষ ও মহিলা মঞ্জুরীকৃত ৫৬৭ পদের বিপরীতে সিএমপিতে কাজ করছেন ৪৩৬জন। এই পদে ঘাটতি রয়েছে ১৩১জন। এসআই (উপ-পরিদর্শক) স্বশস্ত্র পুরুষ ও মহিলা পদে মঞ্জুরীকৃত ৬৯টি পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন ৫৮জন এবং ঘাটতি ১১জন।

সার্জেন্ট পুরুষ ও মহিলা পদে মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ২২২জন হলেও কর্মরত আছেন মাত্র ১৬৪জন । এই পদের বিপরীতে সিএমপিতে ঘাটতি রয়েছে ৭৬টি জন। টিএসআই পদে মঞ্জুরীকৃত ৮ জন কর্মরত আছেন ।
সহকারি উপ-পরিদর্শক (এএসআই) নিরস্ত্র পুরুষ ও মহিলা মঞ্জুরীকৃত ৫৬৭টি পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন ৪৯২জন। যা নির্ধারিত সংখ্যার চেয়ে ৭৫জন কম।

সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) স্বশস্ত্র পুরুষ ও মহিলা পদে মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ১৮৮টি হলেও কর্মরত আছেন ১২২জন। ঘাটতি রয়েছে ৬৬জন। এছাড়াও নায়েক পুরুষ ও মহিলা পদে মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ৩০০টির স্থলে কর্মরত রয়েছেন ২১১জন। ৮৯জনের ঘাটতি রয়েছে এই পদে। কনস্টেবল পুরুষ ও মহিলা পদে মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ৪হাজার ৫শ ৮৯টি। এর বিপরীতে সিএমপিতে কনস্টেবল পদে কর্মরত আছেন ৩ হাজার ৯শ ৩৯ জন। আর এই পদে ঘাটতি রয়েছে ৬৫০জন ।

লোকবল স্বল্পতার বিষয়টি স্বীকার করে নগর পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, গত বছর থেকে শুরু করে চলতি বছরের আজ পর্যন্ত বেশ কিছু সংখ্যক পুলিশ সদস্য অবসরে গেছেন কিন্তু তার বিপরীতে নিয়োগ ঠিক সেভাবে হয়নি। একারণেই একটা শূন্যতা তৈরি হয়েছে। সামনে বেশ কিছু নিয়োগ প্রক্রিয়া আছে। নিয়োগ হলেই এই সমস্যা অনেকাংশেই কমে যাবে বলেও মনে করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের এই উর্ধবতন কর্মকর্তা।

তবে নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর (অব) এমদাদুল ইসলাম বলেন, আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের জন্য সিএমপিতে যে লোকবল তা অতি নগণ্য।

কম লোকবল নিয়েও অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সিএমপি যথেষ্ট ভালো ভূমিকা রাখছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ৬০ লক্ষ মানুষের নগরীতে প্রয়োজনের তুলনায় সিএমপির ফোর্স অনেক কম। জরুরি ভিত্তিতে এই সংখ্যা বাড়ানো উচিত।

এসএম

Advertisement